বুধবার, ০৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ১০:১০ অপরাহ্ন
শিরোনাম
শিরোনাম
তিতাসের জন্মদিনে উপহার পেল কৃতি দুই শিক্ষার্থী বিশ্বকাপ হাতে নিয়ে তদন্তের মুখে পড়লেন সল্ট বে কুষ্টিয়ায় শীতার্থদের মাঝে বিচারপতি আবু জাফর সিদ্দিকীর কম্বল বিতরন কুষ্টিয়ায় বিচারপতি আবু জাফর সিদ্দিকীর বৃক্ষ রোপন কুষ্টিয়ায় আপিল বিভাগের বিচারপতি আবু জাফর সিদ্দিকীকে সম্মাননা প্রদান কুষ্টিয়ার হরিনারায়ণপুর মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ে মহান বিজয় দিবস উদযাপন কুষ্টিয়ার গোস্বামী দুর্গাপুর ইউনিয়ন পরিষদে মহান বিজয় দিবস উদযাপন কুষ্টিয়ার লক্ষীপুরে জঙ্গীবাদ বিরোধী বিক্ষোভ মিছিল ইবির ছাত্রকে পেটালানে ছাত্রলীগ কর্মী; তদন্ত কমিটি গঠন কুষ্টিয়ার তিন উপজেলা ছাত্রলীগের মানববন্ধন

টিকা গ্রহনের জন্য ৩ বছর আগে ‘মৃত’ এস এম আনোয়ার দ্বারে দ্বারে ঘুরছে

নিজস্ব প্রতিবেদক / ৩৫০ বার পড়া হয়েছে
আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ২৯ জুলাই, ২০২১, ১০:১৯ অপরাহ্ন

ভোটার তালিকায় তিন বছর আগেই ‘মৃত’ তিনি।এখন বাঁচার জন্য টিকা দরকার।কিন্তু ভোটার তালিকায় তার নাম মৃত তালিকায় থাকায় টিকার জন্য রেজিষ্ট্রেশন করতে পারছেন না।ঝিনাইদহ পৌরসভার ৬ নং ওয়ার্ডের কাঞ্চন নগর গ্রামের মৃত শেখ মোহাম্মদ আলী ছেলে এসএম আনোয়ার হোসেন দিব্যি জীবিত থাকলেও তাকে মৃত দেখানো হয়েছে।তার এনআইডি নং ৮২৪৪৯৬১২৮৩।ফলে জাতীয় পরিচয় পত্র না থাকায় কোন কাজই তিনি করতে পারছেন না। বৃহস্পতিবার বিকালে তিনি এ প্রতিনিধির কাছে জানান,নির্বাচন কমিশনের ডাটাবেইজে তিনি মৃত। কিন্তু বাঁচান জন্য এখন তার দরকার টিকার রেজিষ্ট্রেশন।এসএম আনোয়ার ছোট-খাটো ঠিকাদারি কাজ করেন।করোনার ভ্যাকসিনের নিবন্ধন করতে গিয়ে জানতে পারলেন তিনি ‘মৃত’।তথ্য নিয়ে জানা গেছে,এসএম আনোয়ার নির্বাচন কমিশনের ডাটাবেইজে ২০১৮ সালের আগ থেকেই ‘মৃত’।২০১৮ সালে সংসদ নির্বাচনের আগে পৌরসভা থেকে স্মার্টকার্ড গ্রহণ করেন আনোয়ার।তিনি অভিযোগ করেন,ঝিনাইদহ ওয়াজির আলী স্কুল এন্ড কলেজের শিক্ষক শরিফুল ইসলাম তার এলাকার ডাটাবেইজ তৈরী করেন।তিনিই তাকে ‘মৃত’ দেখিয়েছেন।তবে শরিফুল ইসলাম অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, বাড়ির লোকজনের দেওয়া তথ্য নিয়ে তিনি ফর্ম পূরণ করেছেন। ইচ্ছাকৃত বা উদ্দেশ্য প্রণোদিত ভাবে এরকম করা হয়নি।ঝিনাইদহ সদর উপজেলা নির্বাচন অফিসার মোঃ মশিউর রহমান জানান,কোন কোন ক্ষেত্রে তথ্যগত ভুল হতেই পারে। তবে আবেদন করে সংশোধন করার সুযোগ রয়েছে।এসএম আনোয়ার জানান,তার পরিচয় পত্রে এতোবড় ভুল থাকার কারনে শতবার চেষ্টা করেও টিকা নিবন্ধন করা যায়নি। ঝিনাইদহ সদর উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ শামীম কবির জানান, সরকার ৮০ শতাংশ লোককে টিকার আওতায় আনার চিন্তা করেছে।সে লক্ষ্যে নিবন্ধন না করে শুধু মাত্র জাতীয় পরিচয় পত্রের নাম্বার লিখে রেখে টিকা দেওয়া ব্যবস্থা করছে। এদিকে নির্বাচন অফিসের দৃষ্টিতে এটা খুব ছোট সমস্যা হলেও এমন সমস্যা নিয়ে অনেক মানুষ ভোগান্তিতে পড়েছেন।কারও বাপের থেকে ছেলে দুই বছরের বড়।কারো নামের বানান ভুল,সার্টিফিকেটে এক নাম জাতীয় পরিচয় পত্রে আরেক নাম,প্রকৃত বয়সের চেয়ে জাতীয় পরিচয় পত্রে বয়স ১৫/২০ বছর কম এমন সমস্যা নিয়ে প্রায় প্রতিদিন ঝিনাইদহ নির্বাচন অফিসে ভীড় করছে মানুষ।ভুক্তভোগীদের দাবি সরজমিনে না গিয়ে তথ্য সংগ্রহ করায় এমন বড় দাগের ভুলের মাশুল দিচ্ছে গ্রামের সাধরণ মানুষ।


এ জাতীয় আরো খবর ....
এক ক্লিকে বিভাগের খবর
Translate »
error: Content is protected !!
Translate »
error: Content is protected !!