শনিবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২৩, ০৭:১১ অপরাহ্ন
শিরোনাম
শিরোনাম
বিশ্বকাপ হাতে নিয়ে তদন্তের মুখে পড়লেন সল্ট বে কুষ্টিয়ায় শীতার্থদের মাঝে বিচারপতি আবু জাফর সিদ্দিকীর কম্বল বিতরন কুষ্টিয়ায় বিচারপতি আবু জাফর সিদ্দিকীর বৃক্ষ রোপন কুষ্টিয়ায় আপিল বিভাগের বিচারপতি আবু জাফর সিদ্দিকীকে সম্মাননা প্রদান কুষ্টিয়ার হরিনারায়ণপুর মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ে মহান বিজয় দিবস উদযাপন কুষ্টিয়ার গোস্বামী দুর্গাপুর ইউনিয়ন পরিষদে মহান বিজয় দিবস উদযাপন কুষ্টিয়ার লক্ষীপুরে জঙ্গীবাদ বিরোধী বিক্ষোভ মিছিল ইবির ছাত্রকে পেটালানে ছাত্রলীগ কর্মী; তদন্ত কমিটি গঠন কুষ্টিয়ার তিন উপজেলা ছাত্রলীগের মানববন্ধন কুষ্টিয়ায় জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদককে গণপিটুনী

বন্যার আশঙ্কায় সিলেটবাসী

নিজস্ব প্রতিবেদক / ৩২৬ বার পড়া হয়েছে
আপডেট টাইম : রবিবার, ১৫ আগস্ট, ২০২১, ৯:০৫ পূর্বাহ্ন

অব্যাহত বৃষ্টি আর উজান থেকে নেমে আসা ঢলে সিলেটের পাঁচটি নদ-নদী এখন ফুঁসছে। বিপৎসীমা অতিক্রম না করলেও প্রতিটি নদ-নদীই পানিতে ভরপুর। প্রতিনিয়ত পানি বাড়ছে। ফলে বন্যার আশঙ্কায় রয়েছেন সিলেটবাসী।

সিলেট পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) সূত্রে জানা গেছে, সুরমা, কুশিয়ারা, লোভা, ধলাই এবং সারি নদীর পানি আগের দিনের চেয়ে শনিবার বেড়েছে। পানিবৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় দুশ্চিন্তাও বাড়ছে।
পাউবো জানিয়েছে, সুরমা নদীর পানি শুক্রবার সন্ধ্যা ৬টায় কানাইঘাট পয়েন্টে ছিল ১২.৩৬ সেন্টিমিটার। শনিবার সকাল ৯টায় পানি বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১২.৬৬ সেন্টিমিটার। বিপৎসীমা থেকে মাত্র ০.৯ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে পানি।

সুরমা নদীর পানি বেড়েছে সিলেট পয়েন্টেও। শুক্রবার সন্ধ্যায় যেখানে পানি ছিল ৯.৭৮ সেন্টিমিটার, শনিবার সেখানে ৯.৯৫ সেন্টিমিটার পানি প্রবাহিত হয়।

কুশিয়ারা নদীর পানি আমলশিদ পয়েন্টে শুক্রবারের চেয়ে বেড়েছে ০.৮ সেন্টিমিটার। শুক্রবার পানি ছিল ১৩.৩১ সেন্টিমিটার, শনিবার দাঁড়িয়েছে ১৩.৩৯ সেন্টিমিটার।

শেওলা পয়েন্টে কুশিয়ারা নদীর পানি শুক্রবার সন্ধ্যা ৬টায় ছিল ১০.৯৭ সেন্টিমিটার। শনিবার সকাল ৯টায় পানি ১১.০৮ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়। কুশিয়ারার পানি ফেঞ্চুগঞ্জ পয়েন্টে স্থিতিশীল রয়েছে।

কানাইঘাট দিয়ে বয়ে যাওয়া লোভা নদীর পানি শুক্রবারের চেয়ে বেড়েছে ০.৭৪ সেন্টিমিটার। লোভাছড়া পয়েন্টে এ নদীর পানি শুক্রবার সন্ধ্যায় ছিল ১৩.৪৯ সেন্টিমিটার। শনিবার সকালে পানি ১৪.২৩ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছিল।
সারি নদীর পানি সারিঘাট পয়েন্টে শুক্রবার ছিল ১১.৭০ সেন্টিমিটার। শনিবার ০.২৬ সেন্টিমিটার বেড়ে হয়েছে ১১.৯৬ সেন্টিমিটার।
এদিকে ধলাই নদীর পানি ইসলামপুর পয়েন্টে শুক্রবার ১০.৩১ সেন্টিমিটার ছিল, শনিবার বেড়ে ১০.৯৮ সেন্টিমিটার হয়েছে।

পানি উন্নয়ন বোর্ড সিলেটের নির্বাহী প্রকৌশলী আসিফ আহমেদ যুগান্তরকে বলেন, বৃষ্টি অব্যাহত থাকলে সিলেটের নিম্নাঞ্চলে বন্যা হতে পারে। বন্যা পরিস্থিতি মোকাবেলায় আমাদের প্রস্তুতি আছে।

খবর: যুগান্তর


এ জাতীয় আরো খবর ....
এক ক্লিকে বিভাগের খবর
Translate »
error: Content is protected !!
Translate »
error: Content is protected !!