শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪, ০৭:৪৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম
শিরোনাম
রেলওয়ের জমিতে আ.লীগ নেতার ঘর নির্মাণ ভেঙে দেওয়ার নির্দেশ ইউএনও’র বেনজিনের নাভানা পার্ক বন্ধ ঘোষণা নিজ বাসা থেকে বাবা- মেয়ের মরা দেহ উদ্ধার সন্ধ্যার মধ্যে তীব্র ঝড় যেসব অঞ্চলে কুষ্টিয়ায় রেলের কৃষিজমি ৮০ হাজার টাকা কাঠায় বিক্রি, বাড়ি নির্মাণ হিট স্ট্রোকে অটোচালকের মৃত্যু পরকীয়া করতে গিয়ে যুবক খুন, আটক ৩ ভোট গ্রহনে অনিয়ন হলে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের চাকুরী থাকবে না… নির্বাচন কমিশনার সাতক্ষীরা পৌর এলাকায় সুপেয় পানি সরবরাহ নিশ্চিত ও বর্ধিত পানির বিল প্রত্যাহারের দাবীতে গণঅবস্থান কর্মসূচী গাবুরা ইউনিয়ন জলবায়ু সহনশীল ফোরামের অর্ধবার্ষিক সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত

হঠাৎ পাহাড়ি ঢলে তলিয়ে গেছে হাওর এলাকা

নিজস্ব প্রতিবেদক / ২৩৫ বার পড়া হয়েছে
আপডেট টাইম : রবিবার, ৩ এপ্রিল, ২০২২, ১২:২৫ অপরাহ্ন

উজান থেকে আসা পাহাড়ি ঢল ও বৃষ্টির পানিতে দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলে অবস্থিত বৃহত্তর হাওরাঞ্চলের ‘গেটওয়ে’ হিসেবে পরিচিত কিশোরগঞ্জের হাওরাঞ্চলের আধাপাকা ও কাঁচা বোরো ফসল পানির নিচে তলিয়ে যাচ্ছে। হুমকির মুখে পড়েছে বেশ কয়েকটি ফসল রক্ষা বাঁধ।

নতুন করে মাটি ভরাট করে পরিস্থিতি মোকাবিলায় হাওর উপজেলা ইটনার মসজিদ-মাদ্রাসা-মক্তব থেকে মাইকিং করে কৃষকদের জড়ো করা হচ্ছে। এমন খবরে মাটি কাটার কোদাল এবং বাঁধে ব্যবহার উপযোগী টিন-কাঠ ইত্যাদি নিয়ে ছুটছে বোরো চাষিরা।

জানা গেছে, উজান থেকে আসা অব্যাহত পাহাড়ি ঢল ও বৃষ্টির পানিতে শনিবার দুপুর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত কিশোরগঞ্জের হাওর উপজেলা ইটনা উপজেলার সদর ইউনিয়নের এরশাদনগর শিবির, বড়বাজার, চিড়া গাং, বলদা ফেরিঘাট, কুলিভিটা এলাকার চরাঞ্চলের বিস্তীর্ণ এলাকার উঠতি আধাপাকা ও কাঁচা বোরো জমি পানির নিচে তলিয়ে গেছে। হুমকির মুখে পড়েছে বেশ কয়েকটি ফসল রক্ষা বাঁধ।

এ ব্যাপারে ইটনা থেকে মুঠোফোনে সদর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান সোহাগ মিয়া জানান, ইতোমধ্যে কয়েক হাজার হেক্টর বোরো ফসলের জমি পানির নিচে তলিয়ে গেছে। এ ছাড়া হালালের বাঁধ নামে ফসল রক্ষা বাঁধসহ জুর বিলের বাঁধ ও জিউলের বাঁধেও পাহাড়ি ঢলের প্রবল স্রোত আঘাত করছে।

এ সময় তিনি দাবি করেন, হালালের বাঁধ উপচে পানি প্রবেশ করতে পারলে এ উপজেলার সর্বনাশ হয়ে যাবে। আর এ জন্য নতুন করে মাটি ভরাট করে হালালের বাঁধসহ অন্যান্য বাঁধ রক্ষায় মসজিদ, মাদ্রাসা ও মক্তব থেকে মাইকিং করে বোরো চাষিরা আহ্বান জানানো হচ্ছে।

ইটনা থানার ওসি মো. কামরুজ্জামান মোল্লা জানান, বিরামহীনভাবে নদনদী ও খালবিলের পানি হঠাৎ করে বেড়ে ফসল পানির নিচে তলিয়ে যাওয়ায় কৃষকদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে।

কিশোরগঞ্জের কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর এর উপপরিচালক মো. সাইফুল আলম বলেন, এখন পর্যন্ত কী পরিমাণ ফসলি জমি তলিয়ে গেছে তা নিরূপণ করা সম্ভব হয়নি।


এ জাতীয় আরো খবর ....
এক ক্লিকে বিভাগের খবর
Translate »
error: Content is protected !!
Translate »
error: Content is protected !!