শুক্রবার, ১৪ মে ২০২১, ০৯:৪৯ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
শিরোনাম :
কুষ্টিয়ায় দুস্থ ও অসহায়দের মাঝে মহিলা আওয়ামীলীগের ঈদ বস্ত্র বিতরণ শাড়ী, লুঙ্গী ও খাদ্যসামগ্রীর সাথে মুরগীও পেলেন দুস্থ্য ও হতদরিদ্ররা হারভেস্টার মেশিন থাকলে কৃষকরা অনেক লাভবান হবেন: ডিসি কুষ্টিয়া কুষ্টিয়ায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেলেন বিএডিসি কর্মকর্তা ঈদের দিনেও ঝড়বৃষ্টি বজ্রপাতের আভাস প্রবাসী জয় নেহালের সহযোগিতায় কুষ্টিয়া দিনমনি স্কুলের ছাত্রদের মাঝে ঈদ উপহার বিতরণ সবুজকলি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের উদ্যোগে ইউএনও সোহেল মারুফের বিদায় সম্বর্ধনা দৌলতপুরে নিখোঁজ শিশুর অর্ধগলিত বস্তা বন্দী লাশ প্রতিবেশীর বাড়ি থেকে উদ্ধার ১০ মায়ের মুখে হাসি ফোটাল কুষ্টিয়ার ‘মবিঅ’ কুষ্টিয়ায় একদল তরুনদের উদ্যোগে হতদরিদ্র পরিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ
ঘোষণা:
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে...

শীর্ষসন্ত্রাসী মুকুলের ইশারায় কুষ্টিয়া জেলা পরিষদ সদস্যকে হত্যার চেষ্টা

নিজস্ব প্রতিবেদক / ৬৫ বার পড়া হয়েছে
আপডেট টাইম : সোমবার, ৩ মে, ২০২১, ১২:২৪ অপরাহ্ন

কুষ্টিয়ায় শীর্ষ সন্ত্রাসী মুকুলের নির্দেশে জেলা পরিষদ সদস্য মামুনের ওপর হামলা ঘটনা ঘটেছে। গতকাল রাত ১১ টার সময় মুকুলের নির্দেশে চরমপন্থী সংগঠন এর সেকেন্ড-ইন-কমান্ড বাপ্পির নেতৃত্বে ২০-২৫জন হামলায় অংশগ্রহণ করে।
বিশ্বস্ত সূত্রে জানা যায়, এই বাপ্পিই শীর্ষ চরমপন্থী সংগঠন শ্রমজীবীর বর্তমান সেকেন্ড ইন কমান্ড। বাপ্পি কুষ্টিয়া জেলার সদর উপজেলার উজানগ্রাম ইউনিয়নের দরবেশপুর গ্রামের দবির সরদারের ছেলে। দীর্ঘদিন ধরে বাপ্পি গরু চুরি, ট্রাক ছিনতাই, চুরি-ডাকাতি, পুলিশ সদস্যকে ব্লাকমেইল করে টাকা আদায় সহ বিভিন্ন অপকর্মে জড়িত।

বিশ্বস্ত সূত্রে আরো জানা যায়, সন্ত্রাসী এই বাপ্পি শীর্ষ চরমপন্থী সংগঠন শ্রমজীবীর প্রধান মুকুলের বিয়াই। ক্ষমতার হাত বদলের ধারাবাহিকতায় তিনিই এখন সংগঠনের সেকেন্ড ইন কমান্ড হিসাবে দায়িত্বরত আছেন। তাছাড়া এই বাপ্পি মেম্বার পদপ্রার্থী হিসেবে প্রচার প্রচারণাও করছেন বলে জানা যায়।

চরমপন্থী সংগঠন শ্রমজীবীকে পুনঃ প্রতিষ্ঠিত করতে কাজ করে চলেছেন এই বাপ্পি। গত কয়েকমাস যাবৎ প্রতিদিন দুপুর গড়িয়ে বিকেল হওয়ার সাথে সাথে কুষ্টিয়া শহর থেকে ১০/১২টি মোটরসাইকেল যোগে ২০/২৫জন অপরিচিত যুবক বাপ্পির কাছে আসে। তাদের আসার পর থেকেই দরবেশপুরের বাঁশবাগান ও শিশুবাগানে শুরু হয় গোপন বৈঠক। এই বৈঠক চলে গভীর রাত অবধি। এলাকাবাসী বিষয়টি নিশ্চিত হবার পর গত এক সপ্তাহ যাবৎ এদেরকে নজরদারীর মধ্যে রেখেছিল।

এলাকাবাসীর পদক্ষেপ নেবার আগেই হটাৎ করে ২মে রাত আনুমানিক ১১টার দিকে জেলা পরিষদ সদস্য মামুনুর রশীদ মামুন (টাইগার মামুন) এর উপর আক্রমণ করে সন্ত্রাসীরা। এসময় মামুনের ছোট ভাই এনামুলও আহত হয়। মামুনের ব্যাক্তিগত প্রাইভেট কার লক্ষ করে গুলি ছোড়ে সন্ত্রাসীরা। পরবর্তীতে স্থানীয়রা ছুটে এলে সন্ত্রাসীরা আরো তিন রাউন্ড ফাঁকা গুলি করে আতঙ্ক সৃষ্টি করে পালিয়ে যায়।

আহত মামুনের ছোট ভাই এনামুল জানান, আমরা ভাদালিয়া বাজার থেকে বাড়ি ফেরার পথে দরবেশপুর কালভার্টের কাছে পৌঁছালে অতর্কিত হামলা চালায় সন্ত্রাসীরা। এসময় তারা গুলিও চালায়। দবির সরদারের ছেলে বপ্পি (৩৬) এর নেতৃত্বে দরবেশপুর গ্রামের মৃত আরজান আলীর ছেলে বক্কর (৫০),সামসুল (৪৮), বক্করের ছেলে রনি (২৮), কামরুলের ছেলে শান্ত (২৩) সহ স্বস্তিপুর গ্রামের ও বাইরের এলাকার ১৫/২০ জন হামলায় অংশ নেন।

এনামুল আরো জানান, আমার ভাইকে হত্যার উদ্দেশ্যে এই সন্ত্রাসী হামলা চালায় তারা। পরবর্তীতে স্থানীয়রা ছুটে এলে সন্ত্রাসীরা তিন রাউন্ড গুলি ছুড়ে পালিয়ে যায়। এরপর তাদের উদ্ধার করে কুষ্টিয়া সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বর্তমানে আহতদের সকলের চিকিৎসা চলছে।
এ বিষয়ে কুষ্টিয়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ শওকত কবীর বলেন,এ ঘটনায় এখনো মামলা হয়নি। তবে অভিযোগ আসলেই মামলা হবে। হামলার ঘটনায় চরমপন্থী সংগঠন জড়িত আছে কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, এখন পর্যন্ত এ ধরনে কোন তথ্য প্রমানি বলে জানাই।


আপনার মতামত লিখুন :
এ জাতীয় আরো খবর ....
এক ক্লিকে বিভাগের খবর