মঙ্গলবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৫:৫৬ পূর্বাহ্ন
ঘোষণা:
জেলা প্রতিনিধি, উপজেলা প্রতিনিধি, ক্যাম্পাস প্রতিনিধি, বিভাগীয় প্রতিনিধি, ভ্রাম্যমাণ প্রতিনিধি হিসেবে যোগ দেয়ার জন্য জীবনবৃত্তান্ত, জাতীয় পরিচয় পত্রের কপি, পাসপোর্ট সাইজের ছবি ইমেইল করুন [email protected]  এই ঠিকানায়

ডাকাতের গুলিতে ডাকাত খুন

নিজস্ব প্রতিবেদক / ৫৮ বার পড়া হয়েছে
আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ১৭ আগস্ট, ২০২১, ৯:৪৫ অপরাহ্ন

কক্সবাজারের রামুতে ডাকাতি করতে গিয়ে ডাকাতের হাতে ডাকাত খুন হয়েছে। এ সময় একই পরিবারের ৫ সদস্য আহত হয়েছেন।

সোমবার রাত সাড়ে ১২টার দিকে জোয়ারিয়ানালা ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ড়ের চা-বাগান লাটি মৌলভীরটেক এলাকার মৃত ফকির আহাম্মদের ছেলে জসিম উদ্দিনের বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয় সূত্র জানায়, ডাকাতেরা পরিবারের কর্তা জসিম উদ্দিন ও ছেলে নুরুল ইসলাম রুবেল, সাইফুল ইসলাম, শহিদুল্লা, স্ত্রী হাসিনা আক্তারকে রশি দিয়ে বেঁধে বিভিন্ন দেশীয় তৈরি অস্ত্র নিয়ে মারধর করে গুরুতর আহত করে। এলাকার লোকজন খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে এলে ডাকাতেরা অবস্থা বেগতিক দেখে গুলি ছুড়তে থাকে।

এ সময় ডাকাতের ছোড়া গুলিতে সালমান হোসাইন (২৩) নামে অপর এক ডাকাত সদস্যের মৃত্যু হয়। নিহত ডাকাত সালমান হোসাইন রশিদনগর ইউনিয়নের ৪ নম্বর ওয়ার্ডের পাহাড়তলি এলাকার আবদু ছবির ছেলে।

খবর পেয়ে রামু থানার ওসি আনোয়ারুল হোসাইনের নেতৃত্বে পরিদর্শক (তদন্ত) অরূপ চৌধুরী, এসআই আমিরুল ইসলাম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে আহতদের উদ্ধার করে রামু উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স পাঠিয়েছেন। ঘটনাস্থল থেকে সালমান হোসাইন নামে গুলিবিদ্ধ ডাকাত সদস্যের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

আহত জসিম উদ্দিনের পুত্রবধূ তসলিমা আক্তার বলেন, আমরা প্রতিদিনের মতো পরিবারের সবাই ঘুমিয়ে পড়ি। রাত সাড়ে ১২টার দিকে আমাদের বাড়ির পেছনের দরজা ভেঙে ডাকাত দলের ৮ সদস্য বাড়িতে প্রবেশ করে। তারা আমার শ্বশুর জসিম উদ্দিনসহ পরিবারের ৫ সদস্যকে রশি দিয়ে বেঁধে মারধর করে ও ছুরি দিয়ে আঘাত করে। বাহিরে আরও ডাকাত সদস্য ছিল। এলাকার লোকজন ও দ্রুত পুলিশ আসার কারণে ডাকাতরা আমাদের বাড়ি থেকে শুধু দুইটি মোবাইল নিতে পেরেছে।

তিনি জানান, ডাকাতেরা আমাদের জানায়- তারা ডাকাতি করার জন্য আসে নাই, খুন করার জন্য এসেছে।

এদিকে জসিম উদ্দিনের জামাতা রশিদনগর কাহাতিয়াপাড়া এলাকার জয়নাল আবেদিন নামে এক যুবককে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় নিয়ে গেছে পুলিশ।

স্থানীয়রা জানান, জসিম উদ্দিনের মেয়ে জুলেখা বেগমের সঙ্গে রশিদনগর ইউনিয়নের কাহাতিয়াপাড়া এলাকার জয়নাল আবেদিন নামে এক যুবকের তিন বছর আগে বিয়ে হয়েছিল। তাদের ঘরে এক সন্তান রয়েছে। বিয়ের পর থেকে জয়নাল আবেদিনের সঙ্গে জুলেখার পরিবারের সম্পর্কের অবনতি হয়। তাদের মধ্যে ঝগড়া চলছিল। পরে বাবার বাড়ি চলে আসে। এরপর থেকে জুলেখা বাবার বাড়িতেই থাকতেন।

রামু থানার ওসি আনোয়ারুল হোসাইন জানান, তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

খবর: যুগান্তর


এ জাতীয় আরো খবর ....
এক ক্লিকে বিভাগের খবর