মঙ্গলবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৫:৪২ পূর্বাহ্ন
ঘোষণা:
জেলা প্রতিনিধি, উপজেলা প্রতিনিধি, ক্যাম্পাস প্রতিনিধি, বিভাগীয় প্রতিনিধি, ভ্রাম্যমাণ প্রতিনিধি হিসেবে যোগ দেয়ার জন্য জীবনবৃত্তান্ত, জাতীয় পরিচয় পত্রের কপি, পাসপোর্ট সাইজের ছবি ইমেইল করুন [email protected]  এই ঠিকানায়

রাস্তার অবস্থা বেহাল: চলাচলে চরম ভোগান্তি

নিজস্ব প্রতিবেদক / ৫৬ বার পড়া হয়েছে
আপডেট টাইম : শনিবার, ৪ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ১০:১১ অপরাহ্ন

কুষ্টিয়া জেলার কুমারখালী উপজেলার জগন্নাথপুর ইউনিয়নের চর মহেন্দ্রপুর গ্ৰামের ১ কিলোমিটার রাস্তা যেন মরণফাঁদ।
দীর্ঘদিন ধরে সংস্কার না হওয়ায় রাস্তার অবস্থা বেহাল। এতে চলাচলে চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন আশপাশের হাজারো মানুষ।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, রাস্তাগুলোর কার্পেটিং উঠে গিয়ে ছোট-বড় খানাখন্দে পরিণত হয়েছে। অনেক জায়গায় রাস্তার কার্পেটিং উঠে গিয়ে রাস্তাগুলোর মাঝখানে বড় বড় গড়তো সৃষ্টি হয়েছে । ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা, ভ্যানগাড়ি, বাইসাইকেল ও মোটরসাইকেল আরোহীদের দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে চরমে। সামান্য বৃষ্টিতেই রাস্তাগুলো ডুবে গেছে, ঘটে দুর্ঘটনা।

গ্রামের হাজার হাজার মানুষকে বর্ষা মৌসুমে হাঁটু কাঁদার মধ্যে দিয়ে চলাচল করতে হয়। গ্রামীণ এই রাস্তাগুলোর বেহাল দশা হওয়ার কারণে বিশেষ করে কৃষি প্রধান এই অঞ্চলের কৃষকরা বছরের পর বছর কৃষিপণ্যের ন্যায্য দাম থেকে বঞ্চিত হয়ে আসছে। অপরদিকে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়তে হলে গ্রামীণ জনপদের যোগাযোগ ব্যবস্থা আধুনিকায় করা হয়নি।
এই রাস্তা দিয়ে, বউ বাজার, নতুন বাজার, খাসচর, ভবানীগঙ্গসহ ১০-১২ টি গ্রামের মানুষদের প্রতিনিয়তই চলাচল করতে হয়।

চলাচলের জন্য এই রাস্তাটি একমাত্র পথ হওয়ায় জীবনের ঝুঁকি নিয়েই চরম দুর্ভোগের মধ্যে দিয়ে চলাচল করতে হচ্ছে গ্রামের মানুষের। দিন দিন রাস্তাটি চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়ছে। বর্তমান সরকার যেখানে গ্রামে শহরের সুযোগ-সুবিধা পৌঁছে দেওয়ার লক্ষে কাজ করছেন সেখানে গ্রামীন এই রাস্তার বেহাল দশার দীর্ঘ সময় পার হলেও তা সংস্কার করার কোন খবর নেই সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের।

স্থানীয়রা জানান, চর মহেন্দ্রপুর বাধ থেকে মহেন্দ্রপুর কোল পর্যন্ত রাস্তাটি সামান্য বৃষ্টিতেই জলাবদ্ধতা দেখা । শহরের থেকে গ্রামে যাতায়াতের প্রধান রাস্তাটি বৃষ্টি হলেই চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়ে। এই রাস্তাটি দিয়ে অবাধে চলাচল করে অবৈধ ট্রাক্টর, বাটা হাম্বা ও ভারী যানবাহন, এর কারণে অল্প দিনের রাস্তাগুলো নষ্ট হয়ে যায়।

নতুন বাজারে র’ ভ্যানচালক রহিস উদ্দিন জানান। ভ্যান চালিয়ে চলে তার সংসার ভাঙা রাস্তার কারণে ভ্যান চলাতে খুব কষ্ট হয়। একটু ভারী মাল থাকলে গাড়ি উল্টে যায়।

নতুন বাজারের বাসিন্দা আমজাদ বলেন, মাটির ট্রাক চলাচলের কারণে পিচপাথর উঠে জায়গায় জায়গায় গর্ত হয়ে আছে। তারমধ্যে একটু বৃষ্টি আসলে সব ডুবে যায়। মানুষ শান্তি মতো চলাচল তো দূরের কথা, বাজারঘাটও ঠিকভাবে করতে পারে না।

কুমারখালী উপজেলা প্রকৌশলী আব্দুল রহিম বলেন, রাস্তাটি সংস্কারের জন্য ইতি মধ্যে স্টিমেট প্রস্তুত করা হয়েছে, এখন টেন্ডারের জন্য অপেক্ষায় রয়েছে।

জগন্নাথপুর (ইউপি) চেয়ারম্যান ফারুক খান বলেন, ‘ভোগান্তির কথাটি আমরা জানি। নভেম্বরের মধ্যে রাস্তাটি সংস্কারের কাজ শুরু হাওয়ায় কথা রয়েছে। এই মুহূর্তে রাবিশ দিয়ে চলাচলের উপযোগী করা হবে


এ জাতীয় আরো খবর ....
এক ক্লিকে বিভাগের খবর